1. admin@kishoreganjfiles.com : admin :
পাকুন্দিয়ায় তালাবদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, তবুও সরকারি বেতন নিচ্ছে শিক্ষকরা – কিশোরগঞ্জ ফাইলস
বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
করিমগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ৭ জুয়াড়ী গ্রেপ্তার হোসেনপুরে মাদক সেবনের দায়ে যুবকের ১ বছরের কারাদন্ড এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীর ওপর হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন করিমগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ১৭৫ পিস ইয়াবাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কুলিয়ারচরে ইভটিজিংয়ের দায়ে ২ বখাটের ৬ মাস কারাদণ্ড পাকুন্দিয়ায় অবৈধ দুই ইটভাটাকে লাখ টাকা জরিমানা হোসেনপুর থানা পুলিশের সহযোগিতায় পরিবারে ফিরল মানসিক ভারসাম্যহীন তরুণী মিঠামইনে মা কে রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যা, ঘাতক ছেলে আটক তাড়াইলে মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে উপহার বিতরণ কিশোরগঞ্জ জেলা যুব সংহতির আহবায়ক বাবু, সদস্য সচিব বকুল

পাকুন্দিয়ায় তালাবদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, তবুও সরকারি বেতন নিচ্ছে শিক্ষকরা

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১১ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ২৯১ বার পঠিত

আবু হানিফ, পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ)  প্রতিনিধিঃ

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার কোদালিয়া গ্রামে অবস্থিত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসায় নিয়মিত বেতন ভাতা ও প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির সরকারি বই নিলেও কয়েক বছর বন্ধ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। অথচ সরকারি বেতন ভাতা নিচ্ছেন শিক্ষকরা।

১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে নিয়মিত সরকারি সুযোগ-সুবিধা ও প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির সরকারি বই নিচ্ছেন উপজেলার কোদালিয়া চিলাকাড়া হোসাইনিয়া আহম্মাদিয়া ইবতেদায়ী মাদ্রাসা। ২০১৮ সালের বার্ষিক পরিক্ষার পর থেকে নিয়মিত খোলা ও ক্লাস নেওয়া হয়না। ২০২০ সালের ১৮ই এপ্রিল থেকে বাংলাদেশে অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয় কোভিট-১৯ এর জন্য। তখন থেকেই আর কোন দিন খোলা হয়নি এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি।

বুধবার (১১ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে দশটায় সরেজমিনে মাদ্রাসা গিয়ে কোন শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীকে পাওয়া যায়নি। সকল রুমের মাঝে তালাবদ্ধ। ক্লাস রুমের ভিতরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে দীর্ঘদিনের অব্যবহৃত ভাঙ্গা ব্ল্যাকবোর্ড, ভাঙ্গা চেয়ার টেবিল ও বেঞ্চ।

স্থানীয়রা জানান, আগে রাস্তার পাশে মসজিদ সংলগ্নে মাদ্রাসাটি ছিল। গতবছর স্থানান্তর হওয়ার পর থেকে কোন দিন কোন শিক্ষার্থী বা শিক্ষকদের দেখা যায়নি এখানে। এবছর একদিনও খোলা হয়নি মাদ্রাসা।

দাতা সদস্য মোঃ বাচ্চু মিয়া বলেন, মাদ্রাসা স্থানান্তরের পরে গত ডিসেম্বরে একটা মিটিং করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল এবছরে ছাত্র সংগ্রহ করে নিয়মিত ক্লাস নেওয়া হবে। কিন্তু ছাত্র সংগ্রহ করা হয়নি। আর মাদ্রাসাও খোলা হয়নি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠান হতে তিন জন শিক্ষক সরকারী বেতন ভাতা নিচ্ছে। তারা হলেন,মোশাররফ হোসেন, গোলেছা খাতুন, খাদিজা আক্তার।

এ বিষয়ে কোদালিয়া চিলাকাড়া হোসাইনিয়া আহম্মাদিয়া ইবতেদায়ী মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মোঃ মোশাররফ হোসেন প্রথমে বেতন ভাতা নেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমরা আন্দোলন করে আমাদের অধিকার আদায়ের চেষ্টা করছি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি স্বীকার করেন বেতন নেওয়ার কথা। এতো দিন মাদ্রাসা বন্ধ রাখার বিষয় টি এড়িয়ে গিয়ে আরো বলেন, পরবর্তীতে মিটিং করে আমরা সিদ্ধান্ত নিব কিভাবে মাদ্রাসা চালানো যায়।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার সভাপতি মোঃ ইব্রাহিম বলেন, মাদ্রাসা স্থানান্তরের পরে অসুস্থতার কারণে আমি আর খোঁজ খবর নিতে পারিনি। তবে মাদ্রাসা বন্ধ থাকলেও মাদ্রাসার নামে অন্য প্রতিষ্ঠান থেকে নিয়মিত বার্ষিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছেন কোদালিয়া চিলাকাড়া হোসাইনিয়া আহম্মাদিয়া ইবতেদায়ী মাদ্রাসার ছাত্র ছাত্রীরা।

এ বিষয় পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোজলিন শহীদ চৌধুরী জানান, বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই সংবাদের মন্তব্যের জন্য ‘কিশোরগঞ্জ ফাইলস’ কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। মন্তব্য পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত বিষয়। এর দায় ‘কিশোরগঞ্জ ফাইলস’ কর্তৃপক্ষ নিবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Kishoreganj Files
এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা বা ছবি কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া নকল করা বেআইনি।
Theme Customized By Theme Park BD